‘এগিয়ে যেতে চাই, যতই অন্ধকার আসুক’

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে, শত অন্ধকার, অমানিশা ভেদ করে এগিয়ে যাবে। আমাদের আরও বহুদূর যেতে হবে। আমি এটুকুই বলবো, আমি এগিয়ে যেতে চাই যতই অন্ধকার আসুক, ঘন দুর্যোগ আসুক, যতই গভীর হোক জঙ্গল, কিন্তু এগিয়ে যাওয়ার পথ-সে পথ করে নিতে হবে।’

বুধবার বিকেলে সেনাকুঞ্জে আয়োজিত সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

বিখ্যাত মার্কিন কবি রবার্ট ফ্রস্টের একটি কবিতার লাইন উদ্ধৃতি করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘দ্য উডস আর লাভলি, ডার্ক অ্যান্ড ডিপ, বাট আই হ্যাভ প্রমিজেস টু কিপ অ্যান্ড মাইলস টু গো, বিফোর আই স্লিপ…অ্যান্ড মাইলস টু গো…।

এর আগে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অনুষ্ঠানস্থলে পৌঁছলে তিন বাহিনীর প্রধান তাকে স্বাগত জানান। সশস্ত্র বাহিনী দিবস উপলক্ষে সব অায়োজন দেখেন শেখ হাসিনা। জাতীয় সংগীত পরিবেশন এবং জাতীয় পতাকার প্রতি সম্মান প্রদর্শনের মধ্য দিয়ে সংবর্ধনা অনুষ্ঠান শেষ হয়।

অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রীর নিরাপত্তাবিষয়ক উপদেষ্টা মেজর জেনারেল (অব.) তারিক আহমেদ সিদ্দিক, সেনাপ্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদসহ সামরিক ও বেসামরিক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, সামনে নির্বাচন, ওই নির্বাচনে জনগণ ভোট দিলে আবারও তাদের সেবায় ফিরে আসব। দেশের উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখব। আমরা দেশকে গড়ে তুলতে চাই, এ দেশ হবে উন্নত ও সমৃদ্ধ। যতই অন্ধকার হোক তা পেছনে ফেলে সামনের দিকে এগিয়ে যেতে চাই।

এ সময় তারুণ্যের কবি সুকান্ত ভট্টাচার্যের ‘ছাড়পত্র’কবিতা থেকে আবৃত্তি করে শেখ হাসিনা বলেন, ‘চলে যাব—তবু আজ যতক্ষণ দেহে আছে প্রাণ, প্রাণপণে পৃথিবীর সরাবো জঞ্জাল, এ বিশ্বকে এ শিশুর বাসযোগ্য করে যাবো আমি— নবজাতকের কাছে এ আমার দৃঢ় অঙ্গীকার।’ আগামীর শিশুর জন্য এ দেশ হবে ক্ষুধা, দারিদ্র্যমুক্ত ও সমৃদ্ধ একটি বাসযোগ্য দেশ।

বঙ্গবন্ধু কন্যা বলেন, স্বাধীনতার পর জাতির পিতা সশস্ত্র বাহিনীকে যুগোপযুগী করে গড়ে তোলার পদক্ষেপ নেন। তারই পদাঙ্ক অনুসরণ করে সশস্ত্র বাহিনীকে যুগোপযোগী ও আধুনিক বাহিনী হিসেবে গড়ে তুলতে আমরা বিভিন্ন পরিকল্পনা হাতে নিয়েছি। পঁচাত্তরের কালো রাত না এলে বহু আগেই এদেশ বিশ্ব দরবারে উন্নত সমৃদ্ধ হিসেবে জায়গা করে নিত।

দেশের মানুষের কাছে প্রশ্ন রেখে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘কতটুকু উন্নয়ন করেছি তা আপনারা অবশ্যই দেখছেন। আগে বাংলাদেশ ছিল প্রাকৃতিক দুর্যোগের দেশ হিসেবে পরিচিত। কিন্তু ২০০৮ সালে সরকার গঠনের পর আমরা উন্নত দেশ গড়ে তোলার পরিকল্পনা নিয়ে রাষ্ট্র পরিচালনা করি। ২০১৪ সালে নির্বাচনে অগ্নি-সন্ত্রাস থেকে শুরু করে জ্বালাও-পোড়াওয়ের মধ্য দিয়ে আবারও সরকার গঠন করি। এরপর মানুষের মৌলিক চাহিদা পূরণের জন্য নানা পরিকল্পনা নিই। মানুষের জীবনমান উন্নত করতে বিদ্যুৎ উৎপাদন বৃদ্ধি থেকে শুরু করে ব্যাপক উন্নয়ন কর্মসূচি নিয়ে তা বাস্তবায়ন করেছি।

রোহিঙ্গাদের আশ্রয় প্রসঙ্গে তিনি বলেন, রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দেয়া আমার মানবিক কর্তব্য ও দায়িত্ব। আমরা বিশ্বকে দেখিয়ে দিয়েছি। তাদের (রোহিঙ্গা) খাদ্য, বাসস্থান থেকে শুরু করে সবকিছুতে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী, র‌্যাব, নৌবাহিনী, বিজিবিসহ অন্যান্য বাহিনী কাজ করেছে। অন্যান্য সংস্থাও কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে কাজ করেছে।

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন নিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দেয়ার পাশাপাশি তাদের নিরাপদে নিজ দেশে ফেরাতে মিয়ানমারের সঙ্গে শান্তিপূর্ণভাবে কাজ করছি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Skip to toolbar