ছবিটি প্রতীকী

কিশোরী গণধর্ষণ, আটক ৫

প্রেমের প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় গণধর্ষণের শিকার হয়েছে এক কিশোরী।

বৃহস্পতিবার রাতে রাজধানীর কামরাঙ্গীরচরের পূর্বরসূলপুর এলাকায় ঘটে এ ঘটনা।

পুলিশ নির্যাতিত কিশোরীর বান্ধবীসহ পাঁচজনকে গ্রেপ্তার করেছে। তাৎক্ষণিকভাবে নির্যাতিতাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পৃষ্ঠা ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে ভর্তি করা হয়েছে।

কিশোরীর পিতা জানান, কামরাঙ্গীরচরের পূর্বরসূল এলাকার আট নম্বর গলি থেকে দুই নম্বর গলিতে যাওয়ার পথে এ ঘটনা ঘটে। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে নানীর বাসায় যাওযার জন্য ঘর থেকে বের হয় ১৩ বছর বয়সী ওই কিশোরী। এসময় সঙ্গে ছিলো স্বপ্না নামের তার এক বান্ধবী। চার নম্বর গলিতে যেতেই জোর করে মুখ চেপে দোতলা ভবনের গেটের ভেতরে নিয়ে যায় পাঁচ তরুণ। এসময় স্বপ্না নিরবে সরে যায়।

ভবনের ছাদে নিয়ে কিশোরীর হাত বেঁধে, মুখে রুমাল চেপে পর্যায়ক্রমে পাঁচ জন ধর্ষণ করে। এক পর্যায়ে মেয়েটির চিৎকার শুনে আশপাশের লোকজন এগিয়ে গেলে ধর্ষকরা পালিয়ে যেতে চেষ্টা করে। এসময় আশপাশের লোকজন তিন জনকে আটক করে পুলিশে সপোর্দ করে। তাৎক্ষণিকভাবে অভিযান চালিয়ে আরও দুই জনকে গ্রেপ্তার করে কামরাঙ্গীচর থানা পুলিশ। গ্রেপ্তাররা হচ্ছে,  হাসান, সিফাত, সবুজ, রনি ও স্বপ্না।

নির্যাতিতার বরাত দিয়ে তার পরিবারের সদস্যরা জানান, কিছুদিন আগে ওই এলাকার বাসিন্দা রতন নামের এক তরুণ ওই কিশোরীকে প্রেমের প্রস্তাব দেয়। কিশোরী ওই প্রস্তাব প্রত্যাখান করে। এতেই ক্ষুব্ধ হয় রতন। প্রেমের প্রস্তাব ফিরিয়ে দেয়ার কারণে গণধর্ষণের পরিকল্পনা করে। কিশোরীর বান্ধবী স্বপ্নার সহযোগিতায় তাকে ওই ভবনের ছাদে নিয়ে ধর্ষণ করে।  এ ঘটনায় নির্যাতিতার মা বাদি হয়ে ছয় জনকে আসামি করে কামরাঙ্গীরচর থানায় মামলা করেছেন। কামরাঙ্গীরচর থানায় পরিদর্শক মহিতুল আলম বলেন, প্রেমের প্রস্তাব দিয়ে ব্যর্থ হলে মেয়েটিকে গণধর্ষণের পরিকল্পনা করে রতন। ইতিমধ্যে এ ঘটনায় জড়িত পাঁচ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। রতন পলাতক রয়েছে। আশা করছি তাকেও শিগগিরই গ্রেপ্তার করা সম্ভব হবে। এ ঘটনায় জড়িত সবাই কামরাঙ্গীচর এলাকার বাসিন্দা। তারা দরিদ্র পরিবারের বখাটে ছেলে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Skip to toolbar