দেশে দেশে নিষিদ্ধ হচ্ছে বোয়িং-৭৩৭ ম্যাক্স

অল্প কিছুদিনের ব্যবধানে মারাত্মক দুটি দুর্ঘটনায় পড়ায় অনেক দেশেই এখন বোয়িং-৭৩৭ ম্যাক্স উড়োজাহাজ গ্রাউন্ডেড করা হয়েছে। অন্যদিকে দুর্ঘটনা এড়াতে গ্রাউন্ডেড করার পাশাপাশি নিজস্ব আকাশসীমায় এ মডেলের উড়োজাহাজ উড্ডয়নের ওপরও অস্থায়ী ভিত্তিতে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে সিঙ্গাপুর, মালয়েশিয়া, যুক্তরাজ্য, নেদারল্যান্ডস, আয়ারল্যান্ড, ফ্রান্স, জার্মানি,  অস্ট্রেলিয়া, মালয়েশিয়া ইত্যাদি দেশ। আলাদা বিবৃতি প্রকাশের মাধ্যমে এ নিষেধাজ্ঞা জারির কথা জানিয়েছে দেশগুলোর স্থানীয় বেসামরিক উড়োজাহাজ নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষ। এ নিষেধাজ্ঞা আরোপের ফলে এ মডেলের উড়োজাহাজের কোনো ফ্লাইট দেশগুলোর আকাশসীমায় অথবা সেখানকার বিমানবন্দর থেকে উড্ডয়ন করতে পারবে না।

সিভিল এভিয়েশন অথরিটি অব সিঙ্গাপুর (সিএএএস) গতকাল এক বিবৃতিতে জানায়, পাঁচ মাসেরও কম সময়ের ব্যবধানে ‘বোয়িং-৭৩৭ ম্যাক্স ৮’ মডেলের দুটি উড়োজাহাজ মারাত্মক দুর্ঘটনার কবলে পড়ায় আমরা এ মডেলের উড়োজাহাজের সব ধরনের চলাচল সাময়িকভাবে বাতিল করছি। অভ্যন্তরীণ ও আন্তর্জাতিক সব ধরনের ফ্লাইটের ক্ষেত্রেই এ নিষেধাজ্ঞা বলবৎ থাকবে।

গতকাল থেকেই এ নিষেধাজ্ঞা কার্যকর হিসেবে বিবেচিত বলে জানিয়েছে সিএএএস। সাময়িক এ নিষেধাজ্ঞা চলাকালে উড়োজাহাজটির ঝুঁকি ও অন্যান্য বিষয় সম্পর্কে পর্যালোচনা করবে সিএএএস।

সিঙ্গাপুর এয়ারলাইনসের রিজিওনাল উইং সিল্ক এয়ার বর্তমানে এ মডেলের ছয়টি উড়োজাহাজ দিয়ে ফ্লাইট পরিচালনা করছে। পাশাপাশি চায়না সাউদার্ন এয়ারলাইনস, গরুড় ইন্দোনেশিয়া, শেনডং এয়ারলাইনস ও থাই লায়ন এয়ারলাইনসও সিঙ্গাপুরে ফ্লাইট পরিচালনায় বোয়িং-৭৩৭ ম্যাক্স মডেলের উড়োজাহাজ ব্যবহার করে আসছিল।

মালয়েশিয়ার আকাশসীমায়ও এ মডেলের উড়োজাহাজ নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। দেশটির সিভিল এভিয়েশন অথরিটির প্রধান নির্বাহী আহমেদ নাজির জুলফিকার গতকাল এক বিবৃতিতে জানান, পরবর্তী নির্দেশনা না দেয়া পর্যন্ত মালয়েশিয়ার আকাশসীমায় বোয়িং-৭৩৭ ম্যাক্স ৮ উড়োজাহাজের সব ধরনের কার্যক্রম স্থগিত করা হয়েছে।

বোয়িং-৭৩৭ ম্যাক্স ৮ উড়োজাহাজ চলাচলের ওপর নিষেধাজ্ঞা ঘোষণা করে বিবৃতি দিয়েছে যুক্তরাজ্যের বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ সিভিল এভিয়েশন অথরিটিও। যুক্তরাজ্যে চলাচলকারী টুই ও নরওয়েজিয়ান এয়ারওয়েজের বহরে এ মডেলের উড়োজাহাজ রয়েছে। বিবৃতিতে সিভিল এভিয়েশন অথরিটি জানায়, বর্তমান পরিস্থিতি খুব গভীরভাবে পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে। ফ্লাইট ডাটা রেকর্ডারের পর্যাপ্ত তথ্যের অনুপস্থিতির কারণে পূর্বসতর্কতামূলক ব্যবস্থা হিসেবে এ ধরনের পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে।

অস্ট্রেলিয়ার সিভিল এভিয়েশন সেফটি অথরিটিও (সিএএসএ) গতকাল এক বিবৃতির মাধ্যমে এ মডেলের উড়োজাহাজ চলাচলের ওপর নিষেধাজ্ঞার ঘোষণা দিয়ে এক বিবৃতি প্রকাশ করেছে। বিবৃতিতে সিএএসএর প্রধান নির্বাহী (সিইও) শেন কারমোডি বলেন, বোয়িং-৭৩৭ ম্যাক্স ৮ মডেলের উড়োজাহাজগুলোয় নিরাপত্তা নিশ্চিত হওয়ার আগ পর্যন্ত আমরা এর সব ধরনের চলাচল সাময়িকভাবে বাতিল করছি। মডেলটি নিয়ে অভ্যন্তরীণ ও আন্তর্জাতিক সব ধরনের ফ্লাইটের ক্ষেত্রেই এ নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়েছে।

সিএএসএ জানায়, অস্ট্রেলিয়ায় ফিজি এয়ারলাইনসই শুধু বোয়িং-৭৩৭ ম্যাক্স ৮ উড়োজাহাজ দিয়ে ফ্লাইট পরিচালনা করে। পাশাপাশি সিঙ্গাপুর এয়ারলাইনসের রিজিওনাল উইং সিল্ক এয়ারও অস্ট্রেলিয়ায় ফ্লাইট পরিচালনায় এ মডেলের উড়োজাহাজ ব্যবহার করে। তবে বর্তমানে তা স্থগিত রেখেছে দেশটি।

অন্যদিকে আকাশসীমায় এ মডেলের উড়োজাহাজ চলাচলের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপের বিষয়টি সরাসরি উল্লেখ না করলেও স্থানীয় সব বিমানবন্দরে এ মডেলের উড়োজাহাজের উড্ডয়ন ও অবতরণ স্থগিত ঘোষণা করেছে ওমান।

গত রোববার ইথিওপিয়ার রাজধানী আদ্দিস আবাবা থেকে ইথিওপিয়ান এয়ারলাইনসের বোয়িং-৭৩৭ ম্যাক্স সিরিজের একটি উড়োজাহাজ উড্ডয়নের কয়েক মিনিট পর বিধ্বস্ত হয়। এতে উড়োজাহাজের ১৫৭ আরোহীর সবাই নিহত হন। এর আগে গত বছরের অক্টোবরে লায়ন এয়ারের একই মডেলের আরেকটি উড়োজাহাজ ইন্দোনেশিয়ায় বিধ্বস্ত হয়। এতে ১৮৯ আরোহী নিহত হন।

অল্প সময়ের ব্যবধানে এ দুই দুর্ঘটনার পর উড়োজাহাজটির নিরাপত্তা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। একের পর এক এয়ারলাইনস নিজস্ব বহরের ৭৩৭ ম্যাক্স ৮ সিরিজের উড়োজাহাজ গ্রাউন্ডেড করার ঘোষণা দিয়েছে। এর মধ্যে সিঙ্গাপুর, চীন, ইন্দোনেশিয়া, দক্ষিণ কোরিয়া, মঙ্গোলিয়া ও অস্ট্রেলিয়া নিজ নিজ দেশে পরিচালনাধীন সব এয়ারলাইনসকে বহরের বোয়িং-৭৩৭ ম্যাক্স উড়োজাহাজ গ্রাউন্ডেড করার নির্দেশ দিয়েছে। এছাড়া ইথিওপিয়ান এয়ারলাইনস, ব্রিটিশ কেইম্যান এয়ারওয়েজ, সাউথ আফ্রিকার কোমএয়ার, ব্রাজিলের গোল এয়ারলাইনস, মেক্সিকোর অ্যারোমেক্সিকো ও আর্জেন্টিনার অ্যারোলিনেয়াস আর্জেন্টিনাস, নরওয়েজিয়ান এয়ার, টুই এয়ারওয়েজ, শেনজেন এয়ারলাইনস, এয়ার চায়না, চায়না ইস্টার্ন এয়ারলাইনস, চায়না সাউদার্ন, হাইনান এয়ারলাইনস, সাংহাই এয়ারলাইনস, জিংমেন এয়ারলাইনস, শ্যানডং এয়ারলাইনস, ওকে এয়ারওয়েজ, কুনমিং এয়ারলাইনস, গরুড় ইন্দোনেশিয়া, লায়ন এয়ার ও সিল্ক এয়ার তাদের বহরের বোয়িং-৭৩৭ ম্যাক্স উড়োজাহাজের সব ফ্লাইট স্থগিত করেছে।

অন্যদিকে ভারতের বৃহত্তম বেসরকারি উড়োজাহাজ সংস্থা জেট এয়ারওয়েজও বর্তমানে নিজ ফ্লাইটগুলোয় এ মডেলের উড়োজাহাজের ব্যবহার বন্ধ রেখেছে। এ ব্যাপারে জেট এয়ারওয়েজের এক মুখপাত্র বলেন, আমাদের বহরে বোয়িং-৭৩৭ ম্যাক্স ৮ মডেলের পাঁচটি উড়োজাহাজ রয়েছে। বর্তমানে সেগুলো আমরা বন্ধ রেখেছি। সমস্যা সমাধান ও উড়োজাহাজ উন্নয়নের ব্যাপারে আমরা বোয়িংয়ের সঙ্গে যোগাযোগ করছি।

ঢাকা-কলকাতা রুটে বোয়িং-৭৩৭ ম্যাক্স চলছে এখনো: এদিকে গতকালও কলকাতা-ঢাকা রুটের ফ্লাইট পরিচালনায় বোয়িং-৭৩৭ ম্যাক্স উড়োজাহাজ ব্যবহার করেছে ভারতের স্পাইস জেট। যদিও ভারতের বৃহত্তম বেসরকারি উড়োজাহাজ সংস্থা জেট এয়ারওয়েজ বোয়িং-৭৩৭ ম্যাক্স উড়োজাহাজ ব্যবহার স্থগিত রেখেছে।

বোয়িং-৭৩৭ ম্যাক্স উড়োজাহাজের সাম্প্রতিক দুর্ঘটনার পর বিষয়টির ওপর নজর রাখছে বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ (বেবিচক)। ইথিওপিয়ান এয়ারলাইনস ও লায়ন এয়ারের ম্যাক্স উড়োজাহাজের দুর্ঘটনার তদন্ত প্রতিবেদন প্রকাশ না হওয়া পর্যন্ত বাংলাদেশের কোনো এয়ারলাইনসকে এ মডেলের উড়োজাহাজ কেনা বা লিজের অনুমতি দেবে না বেবিচক। তবে দেশের বিমানবন্দর ও আকাশসীমায় ৭৩৭ ম্যাক্স উড়োজাহাজ নিষিদ্ধের বিষয়ে এখনো কোনো সিদ্ধান্ত নেয়নি বেবিচক।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Skip to toolbar