ব্যাংকে অনলাইন জালিয়াত চক্রের ৩ সদস‌্য গ্রেপ্তার

কাস্টমার সেজে অনলাইনে ব্যাংক জালিয়াতি করছে একটি প্রতারকচক্র। এ রকম চক্রের তিন সদস্যকে গ্রেপ্তার করেছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের সাইবার নিরাপত্তা ও অপরাধ বিভাগের সোশ্যাল মিডিয়া টিম।

রোববার দুপুরে (২২ মার্চ) ডিএমপির গণমাধ্যম শাখা থেকে জানানো হয়, গ্রেপ্তারকৃতরা হলো চক্রের প্রধান মামুন তালুকদার এবং তার দুই সহযোগী রাজু ফারাজী ও মো. মিঠু মৃধা। ২০ মার্চ ভোরে মামুনকে কক্সবাজার থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। পরে তার দেওয়া তথ্যে ওই দুজনকে গ্রেপ্তার করলে সব তথ্য বেরিয়ে আসে।

গোয়েন্দা কর্মকর্তারা নিশ্চিত হয়েছেন, কয়েক মাস যাবৎ এই চক্রটি অভিনব কায়দায় বিভিন্ন ডায়লার অ্যাপস দিয়ে কয়েকটি ব্যাংকের হেড অফিসের কার্ড ডিভিশনের মোবাইল নম্বর স্পুফ করে শাখা ম্যানেজারদের কল দেয়। পরে আগের মাসের নতুন কার্ড ব্যবহারকারীদের নাম, কার্ড নম্বর এবং মোবাইল নম্বর সংগ্রহ করে। তারপর প্রতারকরা ব্যাংকের কাস্টমার কেয়ার এজেন্ট সেজে গ্রাহকদের কল করে বলে, তারা ব্যাংক থেকে তার নতুন কার্ডটি একটিভ করা বা অন্য কিছু ফিক্স করার জন্য কল করেছেন। এরপর চক্রটি কৌশলে স্পুফড মোবাইল কলের মাধ্যমেই গ্রাহকদের কার্ডের মেয়াদ, ৩/৪ ডিজিটের সিভিভি কোড এবং প্রয়োজন সাপেক্ষে মোবাইলের ওটিপি সংগ্রহ করে। গ্রাহকদের কার্ড থেকে টাকা-ডলার প্রতারকদের লন্ডনভিত্তিক ই কমার্স অ্যাপস স্ক্রিল অ্যাকাউন্ট, বিকাশ বা নগদ এ ট্রান্সফার করে ও পরবর্তীতে এটিএম বুথ বা বিকাশ বা নগদ এজেন্ট থেকে ক্যাশ আউট করে নেয়। এভাবে দেশের একাধিক শীর্ষ স্থানীয় ব্যাংকের শতাধিক গ্রাহকদের অর্ধ কোটি টাকা চুরি গেলে কয়েকটি ব্যাংক কর্তৃপক্ষ ডিএমপির সাইবার সিকিউরিটি অ্যান্ড ক্রাইম বিভাগে অভিযোগ করে। প্রতারকচক্রের কাছ থেকে এ সময় ব্যাংকিং প্রতারণার কাজে ব্যবহৃত একটি এক্সিও গাড়ি, সাতটি বিশেষ অ্যাপসযুক্ত মোবাইল ফোন, বহু ভুয়া রেজিস্ট্রেশনকৃত মোবাইল সিমকার্ড, একাধিক ব্যাংক, বিকাশ, নগদ ও স্ক্রিল অ্যাকাউন্ট জব্দ করা হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Skip to toolbar