২৪ ঘন্টায় করোনায় মৃত্যু ১৫, নতুন শনাক্ত ২৬৬

গত ২৪ ঘণ্টায় সর্বোচ্চ ২৬৬ জন করোনাভাইরাসে সংক্রমিত রোগী বলে শনাক্ত হয়েছেন। এ সময় মারা গেছেন ১৫ জন। দেশে করোনায় এক দিনে মৃত্যুর এই সংখ্যা সর্বোচ্চ। এ নিয়ে দেশে মোট শনাক্তের সংখ্যা দাঁড়াল ১ হাজার ৮৩৮ জন । আর মোট মৃতের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৭৫ জন।

শুক্রবার (১৭ এপ্রিল) দেশের করোনাভাইরাস পরিস্থিতি নিয়ে স্বাস্থ্য অধিদফতরের নিয়মিত অনলাইন স্বাস্থ্য বুলেটিনে যুক্ত হয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক এ তথ্য জানান।

স্বাস্থ্য মন্ত্রী জাহিদ মালিক বলেন, গত ২৪ ঘণ্টায় নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে ২১৯০  জনের। নতুন আক্রান্ত হয়েছেন ২৬৬ জন। মারা গেছেন ১৫ জন৷ মোট মৃতের সংখ্যা ৭৫ জন৷  সুস্থ হয়েছেন ৯ জন, মোট সুস্থ হয়েছেন ৫৮ জন।

চিকিৎসকদের ধন্যবাদ জানিয়ে তিনি বলেন, করোনা যুদ্ধে চিকিৎসক ও নার্স ঝুঁকি নিয়ে সেবা দিয়ে যাচ্ছেন। এই ক্রান্তিলগ্নে তারা যুদ্ধ করছেন। তাদের ধন্যবাদ জানাই। ইতিমধ্যে চিকিৎসক, নার্স ও সংবাদ কর্মী কয়েকজন আক্রান্ত হয়েছেন। আমি তাদের আরোগ্য কামনা করি।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ২০ টি ল্যাব স্থাপন করা হয়েছে করোনা শনাক্তকরণে। মানুষ পরীক্ষা করাতে চান না, তথ্য গোপন করছেন। ফলে চিকিৎসকরা আক্রান্ত হচ্ছেন। তাই সবাইকে বেশি বেশি পরীক্ষা করার আহ্বান জানাচ্ছি।

জাহিদ মালেক বলেন, লকডাউন অনেকে মানছেন না। বাজার এবং রাস্তায় অবাদে চলাফেরা করছেন। আমাদের লকডাউন মানতে হবে। ইতালি ও স্পেন লকডাউন কঠোরভাবে পালন করে আজ এর সংক্রমণ ধীরে ধীরে নিয়ন্ত্রণে নিয়ে এসেছে।

স্বাস্থ্য বুলেটিনে আইইডিসিআর পরিচালক মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা বলেন, এখন পর্যন্ত আক্রান্তের মধ্যে হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়েছেন ৫০০ জনের বেশি। বাকিরা বাসায় বা কোয়ারেন্টিনে চিকিৎসা নিয়েছেন। আইসিইউ সাপোর্ট নিয়েছেন ২৭ জন।

আইইডিসিআর’র এর পরিচালক বলেন, এখন পর্যন্ত যারা আক্রান্ত হয়েছেন তাদের বয়সের পরিসংখ্যান দেখলে বোঝা যায় ২১-৫০ বছরের মানুষ সব থেকে বেশি এই রোগে আক্রান্ত হয়েছেন।

এলাকা ভিত্তিক হিসাবে আক্রান্তদের মধ্যে ঢাকা শহরে ৪৬ শতাংশ, নারায়ণগঞ্জ ২০ ভাগ এর পর যথাক্রমে গাজীপুর, চট্টগ্রাম ও মুন্সিগঞ্জসহ অন্যান্য জেলা।

তিনি বলেন,  গত ২৪ ঘণ্টায় যারা মারা গেছেন তাদের মধ্যে ৬ জন ঢাকার, ৫ জন নারায়ণগঞ্জ ও অন্যান্য জেলার ৪ জন। এখন পর্যন্ত যে ৭৫ জন মারা গেছেন তাদের মধ্যে সব থেকে বেশি সংখ্যক রোগী ছিলেন ৬০ বছরের বেশি। মারা যাওয়াদের ৭৫ ভাগ পুরুষ আর ২৫ ভাগ নারী। যাদের অর্ধেক ঢাকা শহরের আর বাকি অর্ধেকের অর্ধেক নারায়ণঞ্জের ও বাকিরা দেশের অন্যান্য জেলায়।

দেশে করোনাভাইরাসে সংক্রমিত (কোভিড-১৯) প্রথম রোগী শনাক্ত হয় গত ৮ মার্চ। ১৮ মার্চ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে প্রথম একজনের মৃত্যু হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Skip to toolbar