প্রার্থিতা পেতে হাইকোর্টে ৩১ রিট

নির্বাচন কমিশনে বাতিল হওয়ার পর হাইকোর্টে রিট করে প্রার্থিতা ফিরে পেয়েছেন ১১ প্রার্থী। রিট শুনানিতে হাইকোর্ট তাদের মনোনয়নপত্র গ্রহণের নির্দেশ দিয়েছেন। ফলে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশ নিতে তাদের আর বাধা নেই বলে জানিয়েছেন আইনজীবীরা। তবে এ আদেশের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রপক্ষ আপিল করবে বলে জানিয়েছেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম।

নির্বাচনে অংশ নিতে যাদের বাধা কাটল তারা হলেন- নীলফামারী-৪ আসনের বিএনপি প্রার্থী সৈয়দপুর পৌরসভার মেয়র আমজাদ হোসেন সরকার , দিনাজপুর-৩ আসনে বিএনপির প্রার্থী ও দিনাজপুর সদরের মেয়র সৈয়দ জাহাঙ্গীর আলম, নীলফামারী-৩ (জলঢাকা) আসনে উপজেলা বিএনপির সভাপতি পৌর মেয়র ফাহমিদ ফয়সাল চৌধুরী, নওগাঁ-৫ আসনে বিএনপির প্রার্থী নওগাঁ পৌরসভার মেয়র নাজমুল হক, পঞ্চগড়-১ আসনের বিএনপির প্রার্থী পঞ্চগড় সদরের মেয়র তৌহিদুল ইসলাম, বগুড়া-৭ (গাবতলী-শাজাহানপুর) আসনের বিএনপির প্রার্থী শাহজাহানপুর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বাদল সরকার, বগুড়া-৩ আসনে বিএনপির আব্দুল মুহিত তালুকদার, কুড়িগ্রাম-৪ (রাজিবপুর, রৌমারী ও চিলমারী উপজেলা) আসনের স্বতন্ত্র প্রার্থী গণজাগরণ মঞ্চের মুখপাত্র ডা. ইমরান এইচ সরকার, টাঙ্গাইল-৮ (সখীপুর-বাসাইল) আসনের জাতীয় পার্টির প্রার্থী কাজী আশরাফ সিদ্দিকী, নওগাঁ-৪ আসনে স্বতস্ত্র প্রার্থী আফজাল হোসেন এবং একেএম মাহফুজুর রহমান (আসনের তথ্য পাওয়া যায়নি)।

সেইসঙ্গে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার তিনটি রিটসহ মোট ১৪টি রিট আগামীকাল সোমবার শুনানির জন্য দিন নির্ধারণ করেছেন আদালত। এ ছাড়াও শুনানি নিয়ে ৪ জন প্রার্থীর রিট খারিজ, দুইজনের আবেদন তালিকা থেকে বাদ এবং একজনের প্রার্থিতা বাতিল করেছেন আদালত।

নির্বাচনে অংশ নিতে চাওয়া প্রার্থীদের পৃথক পৃথক রিটের শুনানি নিয়ে রোববার হাইকোর্টের বিচারপতি তারিক উল হাকিম ও বিচারপতি মো.সোহরাওয়ার্দীর সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ দুই প্রার্থীর মনোনয়ন গ্রহণের নির্দেশ দেন।

অপরদিকে হাইকোর্টের বিচারপতি শেখ হাসান আরিফ ও বিচারপতি রাজিক আল জলিলের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ আরও ৯ প্রার্থীর মনোনয়নপত্র গ্রহণের নির্দেশ দেন।

আদালতে রিটকারীদের আবেদনের পক্ষে শুনানিতে ছিলেন- সিনিয়র আইনজীবী আব্দুল বাসেত মজুমদার, সাবেক অ্যাটর্নি জেনারেল এ এফ হাসান আরিফ, ব্যারিস্টার রুহুল কুদ্দুস কাজল প্রমুখ। অন্যদিকে রাষ্ট্রপক্ষে শুনানিতে ছিলেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম।
এ ছাড়া শুনানি শেষে আরও চারজনের বিষয়ে আদেশের জন্য আগামীকাল দিন ধার্য করেন আদালত। তারা হলেন- জাতীয় পার্টির সাবেক মহাসচিব এবিএম রুহুল আমিন হাওলাদার, বিএনপি নেতা ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু, রুহুল কুদ্দুস তালকদার দুলু ও আব্দুল ওয়াদুদ ভূঁইয়া।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Skip to toolbar